লিপইয়ার কাহন

১২ বছরে লিপইয়ার?
না সে দিন দেখার সৌভাগ্য আমাদের হবে না বোধহয়। কেননা আরও বাকি মাত্র ২৯০০ বছর।
কিভাবে চলুন দেখি……………………………………………
হিপার্কাসঃ গ্রীক এই জ্যোতির্বিদের জন্ম বিথাইনিয়ার অন্তর্গত নাইসেইয়া নগরে । তিনি ছিলেন সে যুগের সর্বশ্রেষ্ঠ জ্যোতির্বিদ এবং ত্রিকোণমিতির জনক ।
তিনিই তত্কালীন ৩৬৫ দিন ৬ ঘণ্টার সৌর বছরের ধারণা ভেঙ্গে দিয়ে ত্রিকোণমিতির সাহায্যে বের করেন যে বছর আসলে ৩৬৫ দিন ৫ ঘণ্টা ৫৫ মিনিট ১২ সেকেন্ডে ।বর্তমান সূক্ষ্ম যন্ত্রপাতির সাহায্যে হিসাব করে দেখা গেছে যে , বছরের প্রকৃত দৈর্ঘ্য ৩৬৫ দিন ৫ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৪৬ সেকেন্ড । হিপার্কাস সূর্যের সাথে পৃথিবীর কোন মাপতে ভুল করেছিলেন বিধায় ৬ মিনিট ২৬ সেকেন্ডের গোলমাল হয়েছিল । সে যাই হোক তার এ আবিষ্কার গুরুত্বের সাথে নেন নি রোমান সম্রাটেরা যখন তারা পঞ্জিকার সংস্কার করেন । আর তাতেই বাধে যত গোল………

জুলিয়াস সিজারঃ খ্রিস্টপূর্ব ৪৬ অব্দে রোমান সম্রাট জুলিয়াস সিজার পঞ্জিকার সংস্কার করেন। তিনি এবং তার সহকারী জ্যোতির্বিদ সোসিজেনিস ৩৬৫ দিনে বছর ঠিক করলেন এবং ৪ বছর পর বছর ৩৬৬ দিনে ঠিক করলেন। অর্থাৎ তারা ৩৬৫ দিন ৬ ঘণ্টায় ১ বছর ধরলেন হিপার্কাসের আবিষ্কারের কোন দামই দিলেন না। তখন নিয়মানুযায়ী বছরে ৭ মাস ৩০ দিনে এবং ৫ মাস ৩১ দিনে হওয়ার কথা কিন্তু মাসের ক্রম পরিবর্তনের সাথে সাথে জুলিয়াস সিজার ৫ম মাস কুইন্টালিস কে জুলিয়াস নাম দেন । তা এখন বছরের ৭ম মাস জুলাই । সিজার এছাড়া ঘোষণা দেন তত্কালীন একাদশ মাস জানুয়ারিয়াস থেকে বছর গণনা শুরু হবে।পরবর্তী রোমান সম্রাট অগাস্টাস পূর্ববর্তী ষষ্ঠ মাস সেক্সটিলিস এর নাম পাল্টে রাখেন অগাস্ট। দুই সম্রাটই নিজেদের নামের মাস কে ৩১ দিন দেন । এবং এই দাবির রেশ গিয়ে পড়ে বেচারা ফেব্রুয়ারি মাসের উপর এবং তা গিয়ে দাঁড়ায় ২৮ দিনে । হয়ত এই অনাচারের প্রতিকারের জন্যই ৪ বছর পরের extra ১ দিন গিয়ে জোটে ফেব্রুয়ারী মাসের ভাগ্যে।

পোপ ত্রয়োদশ গ্রেগরীঃ নতুন এই পঞ্জিকায় হিপার্কাসের আবিষ্কার আমলে না নেওয়ায় প্রতিবছর সূর্য পঞ্জিকা থেকে আগিয়ে যাচ্ছিল । ১৫৮২ খ্রিস্টাব্দে পোপ ত্রয়োদশ গ্রেগরী পঞ্জিকার দিনকে বিষুবায়নের সঙ্গে মিল রেখে যথাস্থানে আনার জন্য পঞ্জিকায় ১০ দিন বাদ দেওয়ার প্রস্তাব করেন । ১৭৫২ সালে ইংল্যান্ডে এই পঞ্জিকা চালু হয় । ততদিনে ১০দিনের জায়গায় ১১ দিন বাদ দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে। তাই ১৭৫২ খ্রিস্টাব্দে ২রা সেপ্টেম্বরের পর দিন হল ১৪ সেপ্টেম্বর । সাধ

About জুনেব

একসময় গণিত নিয়ে স্বপ্ন দেখতে ভালবাসতাম। বাস্তবতার যাঁতাকলে আর যন্ত্রকৌশলের ব্যস্ততায় সে স্বপ্ন এখন প্রায় বিস্মৃত। গণিত পাঠশালার কাছে হয়ত সে বিস্মৃত প্রায় স্বপ্নের রেশ ধরেই আসা।

4 comments

  1. অদ্ভুত হিসাব নিকাশ। তবে মজা পেলাম,…ধন্যবাদ

  2. চিন্তা শক্তি বৃদ্ধিতে অনেক উপকারি………ধন্যবাদ।

  3. ব্যাপক কাণ্ড!

Scroll To Top